নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ শিক্ষক শিক্ষিকা হলেন যারা!

খাদেমুল মোরসালিন শাকীর, কিশোরগঞ্জ (নীলফামারী) প্রতিনিধি- নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার প্রাথমিক শিক্ষকদের সাক্ষাতকার শেষে প্রায় একমাস পর শ্রেষ্ঠ শিক্ষক শিক্ষিকাসহ অন্যান্যদের ফলাফল প্রকাশ করা হয়।

উপজেলা শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা যায়, গত ৫নভেম্বর কিশোরগঞ্জ উপজেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ প্রধান শিক্ষক পদের জন্য নয়ানখাল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক গোলাম মওলা, গনেশ আদর্শ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও বাংলাদেশ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি হেদায়েত হোসেন আবেদন ফরম জমা দেন। মহিলা শ্রেষ্ঠ প্রধান শিক্ষিকা পদে নিতাই বাড়ী মধুপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা কামরুন্নাহার রূপালীর একক আবেদন ফরম জমা পড়ে।

অন্যদিকে শ্রেষ্ঠ সহকারী শিক্ষক পদের জন্য গাড়াগ্রাম সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শাহনেওয়াজ শাহ ও বুল্লাইপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক রেজাউল করিমসহ মোট ৭জন সহকারী শিক্ষক আবেদন ফরম জমা দেন। মহিলা শ্রেষ্ঠ সহকারী শিক্ষিকা পদে মাগুড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা শাহনাজ পারভীন ও মাগুড়া দর্জিপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা রেবেকা সুলতানা (রুনা) আবেদন ফরম জমা দেন।

৫ নভেম্বর বিকালে কিশোরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কক্ষে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত সকল প্রতিযোগী উপস্থিত হয়ে শ্রেষ্ঠত্বের জন্য লড়াই করেন। শিক্ষার উপর সকল প্রতিযোগীরা নিজ নিজ দক্ষতার উপর বিভিন্ন বিষয় উপস্থিত যাচাই বাচাই কমিটির কাছে শিক্ষার মান উন্নয়নে নতুন নতুন বিষয় উপস্থাপন করেন। প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মনকে কিভাবে চাঙ্গা করা যায় এবং শিক্ষার্থীদেরকে কিভাবে স্কুলগামী করা যায় তার জন্য শিক্ষক শিক্ষিকারা, গান, কৌতুক, আবৃত্তি, নিত্য নতুন ছন্দ ও শিক্ষামূলক জাদু প্রদর্শনীও করে দেখান শিক্ষক শিক্ষিকারা। প্রানবন্ত সাক্ষাতকার শেষে প্রায় এক মাস পর রবিবার বিকালে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের নোটিশ বোর্ডে শ্রেষ্ঠ শিক্ষক শিক্ষিকার ফলাফল প্রকাশ করা হয়।

উপজেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ প্রধান শিক্ষক নির্বাচিত হয়, নয়ানখাল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক গোলাম মওলা, প্রধান শিক্ষিকা পদে কোন প্রতিদ্বন্দ্বি না থাকায় নিতাই বাড়ী মধুপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা কামরুন্নাহার রূপালীকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত করা হয়।

শ্রেষ্ঠ সহকারী শিক্ষক হিসেবে গাড়াগ্রাম সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক শাহনেওয়াজ শাহ ও শ্রেষ্ঠ শিক্ষিকা হিসেবে মাগুড়া দর্জিপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা রেবেকা সুলতানা (রুনা) কে নির্বাচিত করা হয়। শ্রেষ্ঠ বিদ্যালয় হিসেবে নির্বাচিত হয় শতভাগ এ প্লাস অর্জনকারী সিঙ্গেরগাড়ী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়কে।

শ্রেষ্ঠ এসএমসি সভাপতি মুশরুত পানিয়াল পুকুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি ফরহাদুজ্জামানকে। শ্রেষ্ঠ বিদ্যোৎসাহী সমাজকর্মী হিসেবে উত্তর দুরাকুটি ১নং সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এসএমসি সভাপতি রেজাউল আলম স্বপন, শ্রেষ্ঠ কাব শিক্ষক উত্তর বাফলা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল হালিম, শ্রেষ্ঠ কর্মচারী (প্রাথমিক শিক্ষা প্রশাসনে) কম্পিউটার অপারেটর নিরঞ্জন বর্মন, শ্রেষ্ঠ সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার রফিকুল ইসলাম, ঝড়েপড়া কমার হার উল্লেখ যোগ্য ভাবে কমাতে সক্ষম হয়েছে এ ধরণের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে গাড়াগ্রাম সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়কে শ্রেষ্ঠ বিদ্যালয় নির্বাচিত করা হয়। শ্রেষ্ঠ কাব শিশু হিসেবে বাফলা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৪র্থ শ্রেণীর ছাত্র (রোল নং ২৭) মোঃ সাগর ইসলামকে ঘোষনা করা হয়।

এ ব্যাপারে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার শরিফা আখতার বলেন, উপজেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠরা জেলা পর্যায়ে ভাল ফলাফল করবে বলে আমি বিশ্বাসী।

‘এই গণমাধ্যমে প্রকাশিত কোন সংবাদ বা তথ্য কপি/পেষ্ট করে প্রকাশ করা কপিরাইট আইনে অবৈধ।’

‘সব ধরনের ঘটনা আমাদের জানাতে ০১৭১০৪৫৪৩০৬ নাম্বারে কল করুন।’