দায়িত্ব পালনকালে পুলিশের মোবাইল ফোন ব্যবহারে কঠোর নিদের্শনা

নীলফামারীনিউজ, ডেস্ক রিপোর্ট- দায়িত্বপালনকালে মোবাইল ফোন ব্যবহারে কঠোর নিদের্শনা দেয়া হয়েছে। সম্প্রতি এ সংক্রান্ত একটি প্রজ্ঞাপনও জারি হয়েছে। এতে বলা হয়েছে জরুরি এবং দাপ্তরিক প্রয়োজন ছাড়া দায়িত্ব পালনকালে মোবাইল ফোন ব্যবহার করা যাবে না। বিশেষ করে দায়িত্বরত অবস্থায় সেলফি বা ছবি তুলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করা থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানানো হয়েছে।

.
জানা গেছে, মঙ্গলবার সকালে আইজিপির নির্দেশনা পুলিশের বিভিন্ন ইউনিটে পৌঁছেছে। নির্দেশনা যথাযথভাবে পালন সংক্রান্ত প্রত্যয়ন প্রতিবেদন ১৫ মার্চের মধ্যে পুলিশ সদর দফতরে পাঠানোর কথা বলা হয়েছে।

সম্প্রতি পুলিশ সদর দফতর থেকে দায়িত্বে নিয়োজিত পুলিশ সদস্যদের মোবাইল ফোন ব্যবহার সংক্রান্ত একটি প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, দায়িত্ব পালনকালে পুলিশ সদস্যদের দাফতরিক/জরুরি প্রয়োজন ব্যাতিত অনিয়ন্ত্রিত মোবাইল ফোনের ব্যবহার যথাযথ দায়িত্ব পালনকে ব্যাহত করে। পাশাপাশি পুলিশ সদস্যদের নিরাপত্তাসহ নিজ নামে ইস্যুকৃত অস্ত্র-গুলি ও অন্যান্য সম্পদের নিরাপত্তা বিঘ্নিত হয়।

প্রজ্ঞাপনে আরো বলা হয়, এস্কর্ট ডিউটি, ভিভিআইপি ডিউটিসহ সকল প্রকার ডিউটিতে মোবাইল ফোন ব্যবহার সংক্রান্ত সঠিক নির্দেশনা মানতে হবে। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া মোবাইল ফোন ব্যবহার করা যাবে না। কর্তব্যরত অবস্থায় সেলফি/ছবি তুলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করা থেকে বিরত থাকতে হবে। দায়িত্বরত অবস্থায় ফোনে গেম খেলা, ভিডিও দেখা, গান শোনা, ইউটিউব, ফেসবুক, নিউজ পোর্টাল অবলোকন করা থেকেও বিরত থাকতে হবে। ভবিষ্যতে ডিউটিতে নিয়োজিত পুলিশ সদস্যরা (অনুমোদিত পুলিশ সদস্য ব্যতিত) মোবাইল ফোন ব্যবহার দায়িত্বে অবহেলা হিসেবে গণ্য হবে।

সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (মিডিয়া) মোহাম্মদ আব্দুল ওয়াহাব সাংবাদিকদের বলেন, এই নির্দেশনাগুলো আগে থেকেই ছিলো। তবে সম্প্রতি পুলিশ সদস্যদের দায়িত্বরত অবস্থায় মোবাইল ফোনের ব্যবহার বেড়ে যাওয়ায় নতুন করে নির্দেশনাগুলো মনে করিয়ে দেয়া হয়েছে।

ড. জাফর ইকবালের ওপর হামলার সময় তার নিরাপত্তায় নিয়োজিত দুই পুলিশ সদস্য ব্যস্ত ছিলেন মোবাইল ফোনে

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক, জনপ্রিয় লেখক ও বিজ্ঞানী জাফর ইকবালের হামলার পর তার নিরাপত্তায় থাকা পুলিশের ভূমিকা নিয়ে বিতর্ক উঠেছিলো। বারবার হুমকি পাওয়া জাফর ইকবালের নিরাপত্তার জন্য সরকার থেকে কয়েকজন পুলিশ সদস্যকে নিয়োগ দেয়া হয়। কিন্তু হামলার সময় নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা তিন পুলিশের মধ্যেই দুইজন মোবাইল ফোন নিয়ে ব্যস্ত ছিলেন। পরবর্তীতে এই দুই পুলিশ সদস্যকে প্রত্যাহার করা হয়। এতাবস্থায় পুলিশ সদর দপ্তর থেকে দায়িত্বরত অবস্থায় মোবাইল ব্যবহারে কঠোর নিদের্শনা দেয়া হয়েছে।

‘এই গণমাধ্যমে প্রকাশিত কোন সংবাদ বা তথ্য কপি/পেষ্ট করে প্রকাশ করা কপিরাইট আইনে অবৈধ এবং দন্ডনীয় অপরাধ।’