নীলফামারীর কিশোরগঞ্জে খালেদা জিয়ার মুক্তি চেয়ে যা বললেন বেবী নাজনীন

নীলফামারীনিউজ, ডেস্ক রিপোর্ট- গনতন্ত্রকে রক্ষা করতে দলমত নির্বিশেষে একসাথে ঐক্যবদ্ধ ভাবে কাজ করতে নেতা কমীদের নির্দেশ দিয়েছেন বিএনপির সহঃ আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক সঙ্গীত শিল্পী বেবী নাজনীন। দলকে সু-সংগঠিত করতে কে নেতা কে কর্মী তা না দেখে নিজ দায়িত্বে দেশের অস্তিত্বকে টিকিয়ে রাখতে সকলকে কাজ করতে হবে। দেশের ক্লান্তিলগ্নে সরকার নিজ ক্ষমতাকে পাকা পোক্ত করতে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে অন্যায় ভাবে মামলা দিয়ে জেলখানায় আটকে রেখেছে।
বৃহস্পতিবার (৫ এপ্রিল) দুপুরে নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মাসুদ রানা পাটোয়ারীর বাসায় দাওয়াত অনুষ্ঠানে দাওয়াত খেতে এসে উপরোক্ত কথা বলেন।

বেবী নাজনীন কিশোরগঞ্জ থানা মোড়ে পৌছলে বিএনপির নেতা কর্মীরা তাকে সংবর্ধনা জানাতে তার গাড়ীর সাথে সাথে হেটে বাজার এলাকায় আসেন। পরে ভাতিজি জামাতা উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মাসুদ রানা পাটোয়ারী তাকে ফুলের তোড়া দিয়ে অভিনন্দন জানান। শিল্পীকে দেখতে মুহুর্তের মধ্যে কয়েকশত লোক উপস্থিত হয় উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদকের বাসায়। শত শত নেতা কর্মীদের ভিড়ে শিল্পী বেবী নাজনীন সকলকে হাত নেড়ে শুভেচ্ছা জানান। নেতা কর্মীদের অনুরোধে শিল্পী বেবী নাজনীন সংগঠনের বর্তমান অবস্থা জানতে এবং সংকটময় অবস্থায় সংগঠনকে বেগবান করতে নেতা কর্মীদের সাথে মত বিনিময় অনুষ্ঠানে অংশ নেন। এ সময় উপজেলা বিএনপির দপ্তর বিষয়ক সম্পাদক লিয়াকত আলীর সঞ্চালনায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় বিএনপির সহঃআন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক সঙ্গীত শিল্পী বেবী নাজনীন। এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন,জেলা ওলামাদলের সভাপতি ও কিশোরগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আ ন ম রুহুল ইসলাম,উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মাসুদ রানা পাটোয়ারী,উপজেলা সহঃ সভাপতি মাহুবার রহমান বিলু,উপজেলা বিএনপির উপদেষ্টা আনছার আলী শাহ্, সৈয়দপুর পৌর বিএনপির সভাপতি ছামসুল আলম ও যুবদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী গ্রেনেট বাবু প্রমূখ। মত বিনিময় সভায় উপজেলা ও বিভিন্ন ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দ ও সহযোগী সংগঠনের নেতা কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।
বেবী নাজনীন বলেন, আমি যখন খুব ছোট তখন আমাকে শহীদ জিয়াউর রহমান আদর করে ডেকে মেয়ে স্বীকৃতি দিয়ে মাথায় হাত বুলিয়ে দিয়ে টেবিলের উপর দাড়িয়ে দিয়ে বলেছিলেন তুমি একদিন বড় শিল্পী হবে। আজ দেশবাসীর দোয়ায় এবং আমার বাবা শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের অনুপ্রেরণায় আজ আমি অনেক বড় শিল্পী হয়েছি। কিন্তু তিনি আজ স্বচক্ষে আমাকে দেখতে না পেলেও আমি তার আদর্শকে বাস্তবায়ন করতে চাই। তিনি বলেন,আমার নেত্রী আমার মা, বেগম খালেদা জিয়া জেলখানায় যাওয়ার আগে বলেছিলেন আমি যদি জেলখানায় যাই তাহলে শান্তিপূর্ণ কর্মসুচী দিয়ে সংগঠনের কাজ চালিয়ে যেতে হবে। তিনি কোন বিশৃংখলার রাজনীতি পছন্দ করেন না। তিনি সকলের উদ্দেশ্য করে বলেন,আপনারা কে কে চান আপোষহীন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি? তখন উপস্থিত সকল নেতা কর্মীরা দু’হাত তুলে শ্লোগান দিতে থাকেন।
বেবী নাজনীন বলেন,আমি দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার অনুমতি ও ভালবাসা নিয়ে সৈয়দপুর-কিশোরগঞ্জ উপজেলায় এসেছি। আমি এতদিন আপনাদের সাথে দেখা করতে পারি নাই বলে সকলের কাছে ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি। আগামীতে আমার জন্মভূমি বাংলাদেশ ও নাড়ী জড়ানো সৈয়দপুর-কিশোরগঞ্জের মানুষের সাথে থেকে কাজ করতে চাই। তিনি আগামীতে উপজেলা প্রশাসনের অনুমতি নিয়ে কিশোরগঞ্জে বিশাল একটি অনুষ্ঠান করার প্রতিশ্রুতি দেন এবং দেশনেত্রীর মুক্তির দাবীতে একটি স্বরচিত একটি গান পরিবেশন করেন।

Comments

comments

‘এই গণমাধ্যমে প্রকাশিত কোন সংবাদ বা তথ্য কপি/পেষ্ট করে প্রকাশ করা কপিরাইট আইনে অবৈধ এবং দন্ডনীয় অপরাধ।’