নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের আনন্দ র‌্যালী

খাদেমুল মোরসালিন শাকীর, কিশোরগঞ্জ (নীলফামারী) করেসপন্ডেন্ট- নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার স্বন্যামধন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কিশোরীগঞ্জ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়কে জাতীয়করণ করে গেজেট প্রকাশ করায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানিয়ে এক বিশাল র‌্যালী বের করা হয়।

নীলফামারী-৪ আসনের সংসদ সদস্য শওকত চৌধুরীর নেতৃত্বে ৭ শতাধিক শিক্ষার্থীকে সাথে নিয়ে র‌্যালীটি সকাল সাড়ে ১১টার সময় স্কুল চত্বর থেকে বের করে উপজেলা শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে আবার স্কুল চত্বরে এসে এক আলোচনা সভায় মিলিত হয়। আলোচনা সভার পূর্বে শিক্ষার্থীরা তাদের প্রিয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটিকে জাতীয় করণ করায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানিয়ে আনন্দ উল্লাস করতে থাকে।

পরে স্কুল পরিচালনা কমিটির সভাপতি সুজা উদ-দৌলা লিপটনের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন কিশোরগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন বাবুল, সাংগঠনিক সম্পাদক রফিকুল ইসলাম সাজু, বাহাগিলী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান শাহ দুলু, কিশোরীগঞ্জ ডিগ্রি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ ও অখন্ড কিশোরগঞ্জ দাবী বাস্তবায়ন কমিটির আহবায়ক আব্দুর রউফ, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা হাবিবুর রহমান হাবুল, কিশোরীগঞ্জ সরকারী বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান জাহাঙ্গীর আলম, অত্র বিদ্যালয়ের শিক্ষক রাশেদুর রহমান ও শিক্ষক কল্যাণ পরিষদের সভাপতি সিরাজুল ইসলাম প্রমূখ। বক্তারা প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানিয়ে বক্তব্য রাখেন।

র‌্যালী শুরু হওয়ার পূর্বে কিশোরীগঞ্জ সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের নাম ফলকের পর্দা উন্মোচন করেন নীলফামারী-৪ আসনের সংসদ সদস্য শওকত চৌধুরী। এ সময় কিশোরগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রশিদুল ইসলাম,সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আনিছুল ইসলাম আনিছ,বাহাগিলী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান শাহ দুলু উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য যে, কিশোরগঞ্জ উপজেলার এ প্রতিষ্ঠান অর্ধশতাধিক বছর পেরিয়ে যাওয়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির রয়েছে আলাদা বৈচিত্র। সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত শ্রেণী কক্ষ থেকে ভেসে আসে শিক্ষকের পাঠদান ও শিক্ষার্থীদের পড়াশোনার সুমধুর আওয়াজ।

বিদ্যালয়ের সাধারণ শাখায় ১৯জন ও ভোকেশনাল শাখায়১১জন শিক্ষকের কঠোর পরিশ্রমে এবং ৪জন কর্মচারীর সুনিপন পরিচর্যায় এ প্রতিষ্ঠান এখন সরকারের আলোয় আলোকিত। আগামীতে এ প্রতিষ্ঠান উপজেলার শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করতে নতুন কাঠামোতে শিক্ষা ব্যবস্থা চালু করেছে।

কিশোরীগঞ্জ সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জাহাঙ্গীর আলম বলেন, আমরা প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানাই। তিনি আমাদের কষ্টকে মূল্যায়ন করে ছাত্রীদের পড়ালেখার পথকে সহজ করে দিয়ে নারী শিক্ষাকে তরান্বিত করেছেন। আগামীতে সরকারী সহযোগীতার মাধ্যমে এ প্রতিষ্ঠান উজ্জল দৃষ্টান্ত স্থাপন করবে।

‘এই গণমাধ্যমে প্রকাশিত কোন সংবাদ বা তথ্য কপি/পেষ্ট করে প্রকাশ করা কপিরাইট আইনে অবৈধ এবং দন্ডনীয় অপরাধ।’