নীলফামারী সরকারী কলেজের উদ্ভিদবিদ্যা বিভাগের ৪র্থ বর্ষের শিক্ষার্থীরা বগুড়া আরডিএ ল্যাবে

মো. মহিবুল্লাহ্ আকাশ- আামাদের চারপাশে থাকা ঐতিহাসিক নিদর্শনসমৃদ্ধ স্থান সম্পর্কে জানতে কিংবা গবেষণাধর্মী প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম খুব কাছ থেকে দেখতে হলে শিক্ষা সফরের কোন বিকল্প নেই। তাই নীলফামারী সরকারী কলেজের উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগের ৪র্থ বর্ষের (২০১৩-১৪ শিক্ষাবর্ষ) ছাত্র-ছাত্রীদের নিয়ে বগুড়ার পল্লী উন্নয়ন একাডেমী (আরডিএ) এবং ঐতিহাসিক স্থান মহাস্থানগড়ে শিক্ষাসফরে গেলেন বিভাগের শিক্ষকবৃন্দ।

সোমবার (১৪ মে) দিনব্যাপী ওই শিক্ষা সফরে বিভাগের ৪৭ জন শিক্ষার্থীর সাথে ছিলেন বিভাগের শিক্ষক আ: সালাম এবং খাদেমুল ইসলাম।

শিক্ষা সফরের প্রথমে আরডিএ অডিটোরিয়াম কক্ষে ব্রিফিং-এ অংশগ্রহণ, বিভিন্ন দুর্লভ ও প্রচলিত উদ্ভিদ দর্শন, আরডিএ কর্তৃক উদ্ভাবিত গাভী খামার পরিদর্শন, আরডিএ ল্যাবরেটরীতে ব্যবহারিক কার্যক্রম অবলোকন এবং মহাস্থানগড় জাদুঘর পরিদর্শন করা হয়।


উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক আ: সালাম বলেন, পল্লী উন্নয়ন একাডেমী ইতোমধ্যে উদ্ভিদবিজ্ঞান সংশ্লিষ্ট নানা বিষয় সম্পর্কে গবেষণা করে সফলতা অর্জন করেছে। উদ্ভিদের টিস্যুকালচার সংক্রান্ত কর্মকৌশল ও বংশবিস্তার কার্যক্রম পরিচালনার জন্য প্রতিষ্ঠানটিতে রয়েছে উন্নতমানের ল্যাবরেটরী।

শিক্ষা সফরে থাকা অপর শিক্ষক খাদেমুল ইসলাম বলেন, শিক্ষার্থীদের খুব কাছ থেকে ল্যাবরেটরীতে কালচার মিডিয়ামের কর্মকৌশল দেখানোরে মাধ্যমে তাদের তাত্ত্বিক জ্ঞানের সাথে ব্যাবহারিক জ্ঞানের সমন্বয় এবং ঐতিহাসিক স্থান মহাস্থানগড় পরিদর্শনের মাধ্যমে নিজ দেশের ইতিহাস-ঐতিহ্য সম্পর্কে সম্যক ধারণা লাভ করানোই ছিল এই সফরের মূল উদ্দেশ্য।

 

শিক্ষার্থীদের মধ্যে পিংকি, ঈশিতা, টুম্পা, রোকন, শাওন, মেহেদী, সুতপা, কুন্তি রাণী, নুর আলম বাদশা, রানা, নুর আলম, নাজমা, বরকত, জগদীস, বেলাল, মুক্তা, রোমান, মুনিয়া, রোমানা, নার্গিস শিক্ষা সফর সম্পর্কে অনুভূতি প্রকাশ করে জানায়, শিক্ষাসফরটি অত্যন্ত চমকপ্রদ ছিল। অত্যন্ত আন্তরিকতার সাথে সফরটির সফল সমাপ্তির জন্য তারা শিক্ষকবৃন্দের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন।

‘এই গণমাধ্যমে প্রকাশিত কোন সংবাদ বা তথ্য কপি/পেষ্ট করে প্রকাশ করা কপিরাইট আইনে অবৈধ এবং দন্ডনীয় অপরাধ।’

‘সব ধরনের ঘটনা আমাদের জানাতে ০১৭১০৪৫৪৩০৬ নাম্বারে কল করুন।’