মিথ্যাচারের ভাঙা রেকর্ড বাজানোই বিএনপির কাজ : কাদের

নীলফামারীনিউজ, ডেস্ক রিপোর্ট- আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনা নিয়ে উৎসবমুখর পরিবেশে ভোটারদের স্বতঃস্ফূর্ত ভোটে খুলনার মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন তালুকদার আবদুল খালেক। সবাই বলছে একটা ভালো নির্বাচন হয়েছে। দুই-একটা বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া নির্বাচন অবাধ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হয়েছে।

তিনি বলেন, শুধু একটা দল এর বিরোধিতা করছে, সেই দলটি হলো বিএনপি। এই দলের নামই হচ্ছে মানি না, মানব না। আসলে বিদেশিদের কাছে নালিশ ও মিথ্যাচারের ভাঙা রেকর্ড বাজানো ছাড়া বিএনপির আর কিছু করার নেই।

বুধবার রাজধানীর মিরপুরে মনিপুর স্কুল অ্যান্ড কলেজের এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে তিনি মন্তব্য করেন। মনিপুর স্কুল অ্যান্ড কলেজের গভর্নিং বডির সভাপতি অধ্যাপক রাশেদা আক্তারের সভাপতিত্বে অন্যদের মধ্যে স্থানীয় সাংসদ কামাল আহম্মেদ মজুমদার অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, এই নির্বাচনের ফলাফল যারা প্রত্যাখ্যান করেছে, আগামী জাতীয় নির্বাচনে জনগণ তাদের প্রত্যাখ্যান করবে।

মঙ্গলবার খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জুকে বিপুল ব্যবধানে হারিয়ে মেয়র নির্বাচিত হন আওয়ামী লীগের প্রার্থী তালুকদার আবদুল খালেক।

২৮৯টি কেন্দ্রের মধ্যে ২৮৬টির ঘোষিত ফল অনুযায়ী, খালেকের এক লাখ ৭৪ হাজার ৮৯১ ভোটের বিরপীতে মঞ্জু পেয়েছেন এক লাখ ৯ হাজার ২৫১ ভোট।

অন্তত একশ কেন্দ্রে ভোট জালিয়াতি হয়েছে অভিযোগ তুলে মঙ্গলবার রাতেই সেসব কেন্দ্রের ফল বাতিল করে পুনরায় নির্বাচন দেওয়ার দাবি জানান বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা মঞ্জু।

আর দলটির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বুধবার ঢাকায় সংবাদ সম্মেলন করে নির্বাচনের ফলাফল প্রত্যাখ্যান করে প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদার পদত্যাগ দাবি করেন।

এর সমালোচনা করে ওবায়দুল কাদের বলেন, এখন খুলনার জনগণ ভোট দিয়েছে খালেককে, তারা প্রত্যাখ্যান করেছে। প্রেস ব্রিফিং করে মিথ্যাচারের ভাঙা রেকর্ড বাজানো আর বিদেশিদের কাছে নালিশ দেয়া ছাড়া তাদের করার কিছু নাই।

দুর্নীতি মামলায় দণ্ডিত বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়া আপিল বিভাগ থেকে জামিন পাওয়ায় এ অনুষ্ঠানে সেতৃমন্ত্রী কাদেরের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন সাংবাদিকরা।

জবাবে কাদের বলেন, আদালত সাজা দিয়েছে, আদালত জেলে পাঠিয়েছে, আদালতই তাকে জামিন দিয়েছে। সেখানে আমাদের বলার কিছু নাই। তবে দুর্নীতির বিরুদ্ধে আমাদের অবস্থানের পরিবর্তন হবে না। বাংলাদেশের বিচার ব্যবস্থা যে ‘স্বাধীন’, আপিল বিভাগের জামিনের রায়ে তা ‘আবারও প্রমাণিত হল’ বলে দাবি করেন ক্ষমতাসীন দলের এই নেতা।

‘এই গণমাধ্যমে প্রকাশিত কোন সংবাদ বা তথ্য কপি/পেষ্ট করে প্রকাশ করা কপিরাইট আইনে অবৈধ এবং দন্ডনীয় অপরাধ।’