ডিমলায় জাতীয় শোক দিবস পালিত

বাদশা সেকেন্দার, ডিমলা (নীলফামারী) প্রতিনিধি- সারাদেশের সাথে ডিমলা উপজেলায়ও যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতীর জনকের ৪৩ তম শাহাদৎ বার্ষিকী নানারূপ কর্মসূচীর মাধ্যমে পালন করা হয়। এ সব কর্মসূচীর মধ্যে ছিল সূর্যদ্বয়ের সাথে সাথে জাতীয় পতাকা অর্ধনৈমিত ভাবে উত্তোলন। বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য প্রদান, শোক র‌্যালী, আলোচনা সভা,শিশু কিশোরদের চিত্রাংকন প্রতিযোগীতা বঙ্গবন্ধুর জীবনি ও বক্তব্য নিয়ে প্রতিযোগিতা ও পুরষ্কার বিতরণ, বিশেষ প্রর্থনা।

দিবসটি পালনে ক্ষমতাশীল আওয়ামীলীগ ও এর সহযোগী সংগঠন মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, ডিআরইউ, স্থানীয় বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, সামাজিক সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান, এনজিও, অটোচালক সমবায় সমিতি সহ বিভিন্ন সরকারী/বেসরকারী প্রতিষ্ঠান দিবসটি পালন করেন। এ উপলক্ষ্যে উপজেলা আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে সাংসদ বীরমুক্তিযোদ্ধা আফতাব উদ্দিনের সভাপতিত্বে একটি আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সকাল ১০.৩০ মিনিট সময় উপজেলা পরিষদ অডিটরিয়ামে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সভাপতিত্বে একটি আলোচনা সভা ও পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠান হয়। উক্ত অনুষ্ঠানে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীরমুক্তিযোদ্ধা তবিবুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক (ভারপ্রাপ্ত) সহিদুল ইসলাম, উপজেলা প্রকৌশলী আবু জাফর সালেহ , উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা- মোঃ সেকেন্দার আলী, ডিমলা সরকারি মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ মোখলেছুর রহমান, ডিমলা থানার অফিসার ইনচার্জ- মফিজ উদ্দিন শেখ, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ডার সামছুল হক সভায় বক্তব্য রাখেন।

বক্তারা জাতীর জনকের আদর্শকে ধারন করতে ছাত্র-ছাত্রী সহ সর্বস্তরের মানুষকে আহবান করেন এবং বঙ্গবন্ধুর পলাতক খুনিদের গ্রেফতার করে দেশে এনে বিচারের দাবী জানান। বাদ জোহর ১৫ আগষ্টের সকল শহীদের আত্মা শান্তি প্রার্থনা করে একটি বিশেষ মুনাজাত ইসলামিক ফাউন্ডেশনের ইমাম ও ডিমলা কেন্দ্রী জামে-মসজিদ, উপজেলা পরিষদ জামে মসজিদ, থানা জামে মসজিদ ও হাসপাতাল জামে-মসজিদে একটি মিলাদ মাহফিল ও বিশেষ প্রার্থনা অনুষ্ঠিত হয়।

‘এই গণমাধ্যমে প্রকাশিত কোন সংবাদ বা তথ্য কপি/পেষ্ট করে প্রকাশ করা কপিরাইট আইনে অবৈধ এবং দন্ডনীয় অপরাধ।’