আলোচনায় নীলফামারীর কিশোরগঞ্জের নৃত্য শিল্পী শরীফ মিয়া!

খাদেমুল মোরসালিন শাকীর, কিশোরগঞ্জ (নীলফামারী) প্রতিনিধি- নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার নৃত্য শিল্পী শরীফ মিয়া (২১) এখন গোট দেশ নৃত্যের তালে মাতিয়ে তুলে চলেছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ২০১৩ সালের মার্চ মাসে শরীফ মিয়া অদম্য ইচ্ছা শক্তি ও দৃঢ় স্বপ্ন নিয়ে নৃত্য জগতে প্রথম পা রাখেন কিশোরগঞ্জ উপজেলা শিল্পকলা একাডেমিতে। সেখান থেকেই তার নাচের চেষ্টা শুরু। কিশোরগঞ্জ শিল্পকলা একাডেমির নৃত্য পরিচালক জাতীয় পর্যায়ে স্থান করে নেওয়া নৃত্য শিল্পী রাজু আহম্মেদ শরীফকে নৃত্যের হাতে খড়ি দেন। শরীফ কারণে অকারণে গুরু রাজু আহম্মেদ’র সাথে লেগেই থাকতেন। শরীফকে নৃত্য শেখাতেন রাজু আহম্মেদ। রাজু আহম্মেদের কাছ থেকে নাচ শিখিয়ে প্রথমে নীলফামারীতে সুবর্ণ জয়ন্তী উপলক্ষে ২০১৩ সালে নাচে অংশ নিয়ে প্রথম স্থান অধিকার করেন এবং জাতীয় পর্যায়ে নৃত্য সংস্থার প্রতিযোগীতায় প্রথম স্থান অধিকার লাভ করেন শরীফ মিয়া। তার নাচে নীলফামারী শিল্পকলা একাডেমির আয়োজক ও দর্শকদের মাতিয়ে তুলে গোটা দেশ বাসীর মাঝে ঝড় তুলে দেন শরীফ হোসেন। সেখান থেকে শরীফ মিয়ার প্রতি আরও বেশী করে নজর দেন প্রশিক্ষক রাজু আহম্মেদ।

১৯৯৭ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারী নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার নিতাই ইউনিয়নের ফরুয়া পাড়া গ্রামের নয়া মিয়া মেম্বারের ঘরে জন্ম গ্রহন করেন শরীফ মিয়া। তার বাবা গত ২০১১ সালের শেষের দিকে মারা যান। মা শরিফা বেগম কোনমতে সংসার চালিয়ে আসছেন। ২ভাই ২ বোনের মধ্যে শরীফ হোসেন সবার বড়। শরীফ মিয়া বিভিন্ন অনুষ্ঠানে নৃত্য করে যে অর্থ উপার্জন করেন তা থেকে নিজের পড়ালেখা, প্রয়োজনীয় জিনিস পত্র ও পরিবারের লোকজনদের সহযোগীতা করে আসছেন।

শরীফ মিয়া কিশোরীগঞ্জ শিশু নিকেতন স্কুল এন্ড কলেজ থেকে ২০১৩ সালে এস এস সি ও বি কে জেড থেকে ২০১৫ সালে এইচ এস সি পাশ করেন। বাবা নেই, সংসারে টাকা নেই তবুও শরীফ মিয়া অদম্য ইচ্ছা আর মনোবল থেমে নেই। তার চেষ্টা ও তার গুরুজনদের নির্দেশনায় শরীফ তার অদম্য ইচ্ছা শক্তিকে কাজে লাগিয়েই যাচ্ছেন।

তার শিক্ষা গুরু রাজু আহম্মেদের মাধ্যমে শরীফ মিয়া উপজেলা, জেলা ও বিভাগের গন্ডি পেরিয়ে যখন জাতীয় পর্যায়ে স্থান দখল করতে সক্ষম হয়েছেন ঠিক সেই মুহুর্তে ২০১৫ সালে ঢাকার নৃত্য সংস্থার শিল্পী সংগঠন নন্দন কলা কেন্দ্রে অভিজ্ঞ প্রশিক্ষক এম আর ওয়াসেকের সাথে পরিচয় করে দেয় শরীফ মিয়া। শরীফ মিয়াকে শিক্ষক হিসাবে নাচ শিখিয়েছেন রাজু আহম্মেদ, এম আর ওয়াসেক, বেলায়েত হোসেন খান,রনি,শফিক,মোহন,আজাদ হোসেন।

নৃত্য শিল্পী শরীফ মিয়া নিত্য নতুন ভাবে শারিরীক কসরতের মাধ্যমে নৃত্য শিখিয়ে বিভিন্ন নাচের অনুষ্ঠানসহ বাংলাদেশ টেলিভিশন ও কয়েকটি বে-সরকারী টিভি চ্যানেলে নাচের স্বাক্ষর রেখেছে।

শরীফের ইচ্ছা বাংলাদেশের একজন খ্যাতনামা নৃত্য শিল্পী হয়ে বিশ্বের কাছে তার প্রতিভার স্বাক্ষর স্থাপন করতে চান। সরকারের উচ্চ পর্যায়ের গুনিজনদের সহযোগীতার প্রসারিত হাতের ছোঁয়া পেলে বাংলাদেশের গন্ডি পেরিয়ে বিদেশেও বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জল করবে স্বপ্নের এ ডিজিটাল বাংলাদেশকে।

এ ব্যাপারে নীলফামারী-৪আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা গোলাম মোস্তফা বলেন, শরীফ নিঃসন্দেহে একজন ভাল আর্টিষ্ট। তার প্রতিভা বিকশিত হউক রন্ধ্রে রন্ধ্রে।

শরীফ মিয়া বলেন, প্রতিটি সময় নেশা ও পেশা, ধ্যান জ্ঞান আমার একটাই। সেটা নৃত্য। আমার সাধনা যেন আল্লাহ পূর্ণ করে দেয়। আমি দেশবাসীর কাছে দোয়া চাই। আমি দেশের ও দেশের মানুষের জন্য কিছু করতে চাই। আমার ইচ্ছা আমি যেন বিদেশে গিয়ে নাচের উপর উচ্চতর ডিগ্রী লাভ করতে পারি এবং দেশকে উপহার হিসাবে কিছু দিতে পারি।

‘এই গণমাধ্যমে প্রকাশিত কোন সংবাদ বা তথ্য কপি/পেষ্ট করে প্রকাশ করা কপিরাইট আইনে অবৈধ এবং দন্ডনীয় অপরাধ।’