ভালো বাড়ি পেতে, স্বামী বা স্ত্রীর একজনকে হিন্দু হতে হবে

নীলফামারীনিউজ, ডেস্ক রিপোর্ট- কয়েকদিন ধরেই নিশাত রিমা লস্কর নামের এক শিক্ষার্থীর বাসা ভাড়া না পাওয়া নিয়ে সরগরম হয়ে আছে ওপার বাংলার মিডিয়া। পশ্চিমবঙ্গের দক্ষিণ ২৪ পরগনার জয়নগর মজিলপুরের মেধাবী ছাত্রী তিনি। সম্প্রতি যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত বিভাগে ভর্তি হয়েছেন। কিন্তু কলকাতা শহরে বাড়ি ভাড়া খুঁজতে গিয়ে বিরূপ অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হয়েছেন এই মুসলিম তরুণী। মুসলিম বলে তাকে কেউ বাসা ভাড়া দিচ্ছে না বলে অভিযোগ।

নিশাতের এই তিক্ত অভিজ্ঞতা নিয়ে নিজের মতামত ব্যক্ত করেছেন প্রখ্যাত নারীবাদী লেখিকা তসলিমা নাসরিন। নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক অ্যাকাউন্টে তিনি লিখেছেন, ‘মুসলমান হওয়ার অপরাধে নিশাত রিমা লস্করকে কলকাতায় কেউ বাড়ি ভাড়া দেয়নি। কেউ বলতে অনলাইনে যারা বাড়ি ভাড়ার বিজ্ঞাপন দেয়, তাদের অনেকে, যাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছিলেন নিশাত রিমার বাবা।’

‘নিশাত রিমা উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করেছে অঙ্কে একশতে ১০০ পেয়ে। যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার পর গ্রামের বাড়ি থেকে ৮০ কিলোমিটার পথ প্রতিদিন ট্রেনে যাওয়া আসা করতে হতো। নিশাত রিমা যদি কলকাতার মুসলমান এলাকায়, পার্ক সার্কাসে, মেটিয়াবুরুজে, খিদিরপুরে একটি ঘর চাইত, পেত। কলকাতার হিন্দু এলাকায় মুসলমানদের বাড়ি ভাড়া দেওয়া হয় না, এ নতুন খবর নয়।’

‘আমি হিন্দু এলাকায় বাড়ি ভাড়া পেয়েছিলাম। আমার পক্ষে সম্ভব ছিল। কারণ আমি তখন লেখক হিসেবে কলকাতায় পরিচিত। আমার অনেকগুলো বই বেরিয়েছে কলকাতা থেকে, দুই দুবার আনন্দ পুরস্কার পেয়েছি। আমার যদি জনপ্রিয়তা না থাকতো, আমি নাস্তিক হলেও, আমার নামটি ‘মুসলমান নাম’ বলে হিন্দু এলাকায় বাড়ি ভাড়া পেতাম না। আমাকে মুসলমানের বস্তিতে যেতে হতো বাড়ি পেতে।’

‘মোদ্দা কথা, মুসলমান নামের কাউকে ভালো এলাকায় বাড়ি ভাড়া পেতে হলে হয় বিখ্যাত হতে হবে, নয়তো স্বামী বা স্ত্রীর একজনকে হিন্দু হতে হবে।’

‘বাংলাদেশের প্রচুর মুসলমান হিন্দুদের ঈর্ষা করে, ঘৃণা করে, কিন্তু তারপরও শহরগুলোয় হিন্দু-মুসলমান পাশাপাশি বাস করে। কলকাতায় সেরকম দেখিনি। শিক্ষিত হলে ছুৎমার্গ গুলো চলে যায়, জানি। কিন্তু দুঃখ হলো, ভেতরের ধর্মবিশ্বাস শিক্ষিত লোককেও অশিক্ষিত বানিয়ে রাখে।’

‘এই গণমাধ্যমে প্রকাশিত কোন সংবাদ বা তথ্য কপি/পেষ্ট করে প্রকাশ করা কপিরাইট আইনে অবৈধ এবং দন্ডনীয় অপরাধ।’